জিপিএফ লোন এর নিয়ম | GPF Loan Application Form

You are currently viewing জিপিএফ লোন এর নিয়ম | GPF Loan Application Form
জিপিএফ লোন এর নিয়ম | GPF Loan Application Form

সুপ্রিয় শিক্ষক কর্মচারী আপনারা নিশ্চয়ই জানেন GPF Loan Application Form জিপিএফ লোন এর নিয়ম কি। তারপর ও আজ আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করলাম এই GPF Loan বা জিপিএফ লোন সম্পর্কে

সাধারণতো প্রভিডেন্ড ফান্ড তিন রকমের হয়ে থাকে। যেমন:

  • GPF
  • C.P.F
  • P.P.F

জিপিএফ লোন যা জেনারেল প্রভিডেন্ড ফান্ড নামে

পরিচিত।

যারা সরকার পোষিত প্রতিষ্ঠান এবং বিভিন্ন স্কুল , কলেজ এ চাকরিরত অবস্থায় আছেন‌ তাদের প্রত্যেকের G.P.F বা প্রভিডেন্ড ফান্ড থাকে।

অর্থাৎ ১৯৮১ সালের পর থেকে এই GPF ব্যবস্থা চালু হয়। ১৯৮১ পর থেকে যারা চাকরিতে যোগদান করেছেন তাঁদের সবাই এই GPF এর আওতায় আসবেন।

জিপিএফ ব্যালেন্স চেক করার নিয়ম | GPF Balance Check

জিপিএফ লোন এর কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল:

মনে রাখতে হবে জিপিএফ লোন কে আবার P.F বলা হয়।

  • চাকুরিতে যোগদানের এক বছর পর থেকে P.F কাটা হয়ে থাকে।
  • প্রভিডেন্ট ফান্ড এর টাকা অর্থ বর্ষ বা ফিনান্স ইয়ার হিসাবে।
  • প্রভিডেন্ড ফান্ড এ maximum বেসিক এর ১০০% কাটাতে পারবেন।
  • প্রভিডেন্ড ফান্ড এ মিনিমাম basic এর ৬% কাটাতে হবে এবং এক বছর পর থেকে p.f কাঠা বাধ্যতামূলক।

আবার আরেকটা বিষয় হচ্ছে আপনার চাইলে বেসিক এর 6 % এর বেশী ও প্রভিডেন্ড ফান্ড এ কাটাতে পারেন।

সর্বোচ্চ 100% আপনি পি,এফ এ রাখতে পারেন।

প্রভিডেন্ড ফান্ড এ এক বছরে দু’বার বাড়ানো যায়।তবে কমানো ও বাড়ানো মিলে মোট দুবার ই করা যাবে।

  • প্রভিডেন্ড ফান্ড এ সুদের হিসাব ফিনান্স ইয়ার এর শেষে করা হয় ,এপ্রিল থেকে মার্চ মাস পর্যন্ত।
  • প্রভিডেন্ড ফান্ড এর মাসিক কিস্তি অবসর এর তিন মাস আগে বন্দ করতে হয়।

GPF Calculator | জিপিএফ হিসাব ক্যালকুলেট করার নিয়ম

জিপিএফ লোন

যারা প্রভিডেন্ড ফান্ড এ টাকা জমা করেন তারা প্রত্যেকেই অর্থাৎ GPF Loan এ টাকা জমার পর কারো লোন‌ এর প্রয়োজন হয় তাই GPF থেকে তারা লোন‌ নিতে পারবেন এই সুবিধা GPF থেকে পাওয়া যায় ।

GPF থেকে দু ধরনের লোন নেওয়া যায়।

  • Re-fundable Loan.
  • None Re-fundable Loan.

চাকরিতে ছাড় পেলে আপনি Re-fundable Lone নিতে পারেন ।

Re,-fundable loan:

  • তিন মাসের basic পে অথবা প্রভিডেন্ড ফান্ড account এ যে টাকা জমা থাকবে তার ৭৫% এই দুটির মধ্যে যেটি কম হবে সেটি পরিশোধ যোগ্য অগ্ৰিম হিসেবে পাওয়া যাবে।
  • অর্থাৎ কোন কর্মচারীর Re-fundable Loan এর ক্ষেত্রে লোনের পরিমাণ হবে। সঞ্চয় এর ৭৫% বা বেসিক এর তিন গুণ,যেটা কম হবে।
  • সেই শোন ২৪ মাসের কিস্তিতে পরিশোধ করতে হবে ।তবে বিশেষ অসুবিধা থাকার কারনে তা কর্তৃপক্ষের অনুমোদন সাপেক্ষে ৪০ মাস হতে পারে।

iBAS++ GPF Balance Check: আইবাস++ দিয়ে জিপিএফ ব্যালেন্স চেক করার নিয়ম

Non-refundable loan:

  • চাকরিকাল ১৫ বছর পূর্ণ হলে অথবা অবসর গ্ৰহনের ১০ বছরের মধ্যে ( যেটি পূর্বে হবে) পি.এফ থেকে অপরিশোধ্য অগ্ৰিম ( Non refundable loan ) পাওয়া যায়।
  • জমা টাকার ৭৫% পর্যন্ত অপরিশোধ্য অগ্ৰিম non- refundable loan পাওয়া যায়.
  • কোন কর্মচারী ১৫ বছর চাকরি করলে বা রিটায়ার্ড এর ১০ বছর আগে ,যেটা আগে হবে সেই অনুসারে non- refundable loan পাওয়া যায়.
  • সে ক্ষেত্রে লোন এর পরিমাণ হবে ৭৫% তবে অবসর এর ,১২ মাস পূর্বে ৯০% non- refundable loan পাওয়া যাবে।

জিপিএফ এ লোন এর জন্য আপনাকে একটি ফর্ম পূরণ করতে হবে সেটি ডাউনলোড করে ও পেতে পারেন।

জিপিএফ লোন এর হিসেবের জন্য কয়েকটি বিষয় জানতে হবে সেগুলো হচ্ছে :

  • ওপেনিং ব্যালান্স।
  • ক্লোজিং ব্যালান্স।
  • ইন্টারনেট রেট।
  • পি এফ ডিপোজিট তারিখ।
  • Monthly লোয়েস্ট ব্যালান্স।

এই ছিল GPF Loan এবং GPF Loan এর কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় যা সকল চাকুরিজীবীদের জানা দরকার। কেননা প্রভিডেন্ড ফান্ড এ টাকা জমার পর অনেকের ই লোন এর প্রয়োজন পড়ে তবে এই শোন এই GPF Loan থেকে তুলা যায়। এটা একটা বিশেষ সুবিধা সকল চাকুরিজীবীদের জন্যে।

অনলাইন পেনশন আবেদন ফরম পূরণ করার নিয়ম

Leave a Reply