পেনশন হিসাব করার সহজ পদ্ধতি | পেনশন হিসাব ২০২২

You are currently viewing পেনশন হিসাব করার সহজ পদ্ধতি | পেনশন হিসাব ২০২২
পেনশন হিসাব ২০২২

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম ” জেনে রেখ নিশ্চয়ই আল্লাহর সাহায্য নিকটবর্তী” আজকে আপনাদের কাছে শেয়ার করব পেনশন হিসাব করার সহজ পদ্ধতি সম্পর্কে কিভাবে আপনি পেনশন হিসাব ২০২২ এ বের করবেন একদম সহজে, আপনি এই আর্টিকেল পড়লে আশা পেনশন হিসাব সম্পর্কে আর কোন চিন্তা করতে হবে না।

কথায় আছে না কষ্ট না করলে ইষ্ট মিলে না ,সবরের ফল মিষ্টি। আমাদের প্রানপ্রিয় মানুষ গড়ার কারিগর শ্রদ্ধেয় শিক্ষকগন অতি কষ্টে তারা শিক্ষার্থীদের আলোর পথের সন্ধান দেখিয়ে দেয় ।সেই শ্রদ্ধেয় শিক্ষকগনদের পেনশন নিয়ে আজকের এই বিষয় একটু শেয়ার করবেন।

পেনশন হিসাব ২০২২

পেনশন হিসাব বের করা খুবই একটি কঠিন ব্যাপার নয়। শুধু মাত্র মূল বেতন কে বেইজ ধরে পেনশন হিসাব করতে হয় । পেনশন রেট ,আনুতোষিক বা এককালীন হিসেব বের করা জানলেই একজন কর্মকর্তা ও কর্মচারী উনার পেনশন টা বের করা সহজ হয়ে যাবে।

সহজভাবে পেনশন হিসাব করতে গেলে বলতে হয় বেসিক যা তার কাছাকাছি এককালীন আসবে এবং বেসিক বা মূল বেতন এর অর্ধেকর ৯০% মাসিক বেতন এ আসবে।

ল্যাম্পগ্ৰান্ড , গ্ৰাচুইটি, ও পেনশন হিসাব করার সঠিক পদ্ধতি:

একটি উদাহরণ এর সাহায্যে আমি বিষয় গুলো সহজ করার চেষ্টা করব ইনশাআল্লাহ সাথে থাকুন।

ধরুন জনাব মোহাম্মদ আলী সাহেব ০৫/১২/১৯৯০ খ্রি. তারিখ এ চাকুরিতে যোগদান করেন এবং তিনি ০১/০৬/২০১৮ খ্রি . তারিখ এ চাকুরি থেকে অবসর গ্রহণ করেন। তিনি মোট চাকরি করেছেন ২৭ বছর ্্০৫ মাস ১৭ দিন । তিনি বিনা বেতনে কোন ছুটি ভোগ করেনি ।তার সর্বশেষ আহরিত মূল বেতন ২৮,০০০ টাকা।এখন তিনি ল্যাম্পগ্ৰান্ড,আনুতোষিক,মাসিক পেনশন ভাতা কত টাকা পাবেন তা একটু উদাহরণ এর সাহায্যে আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করব ।

পেনশন হিসাব করার নিয়ম
পেনশন হিসাব করার নিয়ম

ল্যাম্পগ্ৰান্ড, আনুতোষিক, পেনশন কত তা জানার আগে আপনাকে অবশ্যই জানতে হবে ল্যাম্পগ্ৰান্ড, আনুতোষিক পেনশন কি।

আরোও পড়ুন পেনশন ক্যালকুলেট সম্পর্কে: কিভাবে আপনার পেনশন ক্যালকুলেট করে দেখবেন

ল্যাম্পগ্ৰান্ড কি:

ল্যাম্পগ্ৰান্ড হচ্ছে যা পেনশন বা পি আর এল এর শুরুতে এককালীন পাওয়া যায়। তবে এটা নির্ভর করে ঐ ব্যক্তির ছুটি পাওয়ানা থাকার উপর যত মাসের ছুটি পাওয়ানা ততো মাসের বেসিক একত্রে পাওয়ার নাম ই হচ্ছে ল্যাম্পগ্ৰান্ড।

+( তবে এটা সর্বোচ্চ ১৮ মাসের বেশি নয়).

ল্যাম্পগ্ৰান্ড বের করার পদ্ধতি বা সূত্র:

ল্যাম্পগ্ৰান্ড: শেষ বেসিক × চাকুরীতে অর্জিত ছুটি ( সর্বোচ্চ ১৮ মাস).

=২৮০০০×১৮

=৫০৪,০০০ টাকা।

এই টাকা মোহাম্মদ আলী সাহেব ল্যামগ্ৰান্ড হিসেবে পাবেন।

এখন আমি গ্ৰাচুইটি / আনুতোষিক এর হিসাব আপনাদের সাথে শেয়ার করলাম:

গ্র্যাচুইটি /আনুতোষিক কি:

পি আর এল শেষে সরকারি চাকুরিজীবীরা যে টাকা পান সেটাই হচ্ছে গ্ৰাচুইটি / আনুতোষিক।

গ্ৰাচুইটির সূত্র বা গ্ৰাচুইটি বের করার পদ্ধতি:

( শেষ বেসিক × শতকরা হার) ÷২×বাধ্যতামূলক সমর্পিত আনুতোষিক

=(২৯,২০০×৯০%)÷২×২৩০

=(২৬,২৮০÷২)×২৩০

=৩,০৩২,০০০টাকা।

বি,দ্র: পি,আর ,এল এ থাকার সময়ে একটি ইনক্রিমেন্ট যোগ হয়ে শেষ বেসিক হয় ২৯,২০০ টাকা হয়।

আরোও পড়ুন: অনলাইনে পেনশন আবেদন ফরম পূরণ করার নিয়ম

আরেকটি বিষয় হচ্ছে পেনশন এ টেবিল এর নিয়ম অনুযায়ী কেউ যদি ২৫ বছর এর উর্ধ্বে চাকরি করেন তাহলে তিনি ৯০% এর বেশি পেনশন পাওয়ার যোগ্য । এখানে জনাব মোহাম্মদ আলী সাহেব ২৭ বছর এর উর্ধ্বে চাকরি করেছেন তাই তিনি ৯০%‌ এর বেশি পেনশন পাওয়ার যোগ্য।

তিনি বাধ্যতামূলক আনুতোষিক পেনশন ও পাবেন ২৩০ টাকা করে। কেননা তিনি বাধ্যতামূলক আনুতোষিক পেনশন এর নিয়ম অনুযায়ী ২০ বছর এর উর্ধ্বে চাকরি করেছেন।

এভাবে তিনি ৩,০৩২,০০০ টাকা পাবেন এককালীন পি,আর , এল এ।

এখন আমি আপনাদের সাথে পেনশন এর হিসাব কিভাবে বের করেন তা একটু শেয়ার করব।

পেনশন কি এবং পেনশন এর হিসাব কিভাবে করবেন , অর্থাৎ পেনশন হিসাব বের করার পদ্ধতি।

পেনশন কি/ পেনশন কাকে বলে:

পেনশন হলো সরকারি চাকুরীজীবিদের অবসরের পর প্রত্যেক মাসে যে টাকা পাবেন তা পেনশন।

পেনশন এর হিসাব কিভাবে বের করবেন তা দেখানো হলো:

পেনশন= ( শেষ বেসিক × শতকরা হার)÷২+চিকিৎসা ভাতা।

=(২৯,২০০×৯০%)÷২+১৫০০

=(২৬,২৮০÷২)+১৫০০

=১৩,১৪০+১৫০০

=১৪,৬৪০ টাকা।

এই ভাবে আপনাদের সরকারি চাকরির পেনশন এর হিসাব করতে পারবেন ।এই হিসাব টি সূত্র মোতাবেক করলে আপনার পেনশন এর হিসাব পেয়ে যাবেন।

এছাড়াও ২ টি উৎসব ভাতা পাবেন

  • বৈশাখী ভাতা বেসিক এর ২০% অর্থাৎ ১৩,১৪০ টাকা।
  • ৬৫ বছর এর উর্ধ্বে চিকিৎসা ভাতা ১৫০০ এর স্থলে ‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌২৫০০ টাকা।এই নিয়ম টা ১/৭/২০১৬ খ্রি, তারিখ এ কার্যকর হয়েছে।
  • (বি,দ্র,: মনে রাখতে হবে পরবর্তীতে চাকরিরত অবস্থায় একজন মৃতবরনকারী ও চাকরিতে স্থায়ীভাবে অক্ষমচাকরীজীবির পেনশন হিসেবে সংযোজন করা হবে।)

আরোও পড়ুন: pay fixation থেকে Increment বের করার নিয়ম

চাকরিকাল অনুসারে পেনশন এর হার ও শতাংশ চাকরি কাল ৫ বছর হলে ২১% প্রাপ্ত হবেন।

পূর্বে পেনশন যোগ্য চাকরি কাল ১০-২৫ বছর এর পরিবর্তে ৫-২৫ এবং পেনশন এর হার সর্বশেষ আহরিত মূল বেতন এর স্থলে ৮০% এর স্থলে৯০% এ উন্নীত হয়েছে।ফলে বর্তমানে চাকুরী কাল ৫ বছর হলেই আপনি পেনশন এর আওতায় আসবেন।( এটি কেবল অক্ষম , অযোগ্য, মৃত‌চাকরীজীবি পরিবার পেনশন এর প্রযোজ্য।) তবে পাঁচ বছর চাকুরীর সময় পূর্ণ হলে আর যদি মারা যান তাহলে সেই শিক্ষক, এর পরিবার মাত্র ৩ টি বেসিক জি,পি,এফ পাবেন।

বি,দ্র,( মনে রাখতে হবে আপনি যদি স্থুস্থ্য , চাকরি করার সক্ষমতা থাকে তাহলে চাকরি ২৫ বছর সফলতার সাথে শেষ না করা পর্যন্ত অবসরে যাওয়ার জন্য আবেদন করতে পারবেন না।)

  • চাকরি কাল ৫ বছর হলে ২১% প্রাপ্ত হবেন।
  • চাকরি কাল ৬ বছর হলে ২৪% প্রাপ্ত হবেন।
  • চাকরি কাল ৭ বছর হলে ২৭% প্রাপ্ত হবেন।
  • চাকরি কাল ৮ বছর হলে ৩০% প্রাপ্ত হবেন।
  • চাকরিকাল ৯ বছর হলে ৩৩% শতাংশ হবেন।
  • চাকরিকাল ১০ বছর হলে ৩৬% পূর্বের হার ছিল ৩২%।
  • চাকরিকাল ১১ বছর হলে ৩৯%আগের হার ছিল ৩৫%।
  • চাকরিকাল ১২ বছর ৪৩% আগের হার ছিল ৩৫%.।
  • চাকরি কাল ১৩ বছর হলে ৪৭% আগের হার ছিল ৪২%।
  • চাকরি কাল ১৪ বছর হলে ৫১%আগের হার ছিল ৪৫%।
  • চাকরি কাল ১৫ বছর হলে ৫৪%প্রাপ্ত হবেন।
  • চাকরি কাল ১৬ বছর হলে ৫৭%প্রাপ্ত হবেন, আগের হার ছিল ৫১%।
  • চাকরি কাল ১৭ বছর হলে ৬৩%প্রাপ্ত হবেন আগের হার ছিল ৫৪%।
  • চাকরি কাল ১৮ বছর হলে ৬৫% প্রাপ্ত হবেন আগের হার ছিল ৫৮%। চাকরি কাল ১৯ বছর হলে ৬৯%প্রাপ্ত হবেন আগের হার ছিল ৬১%।
  • চাকরি কাল ২০ বছর হলে ৭২% প্রাপ্ত হবেন আগের হার ছিল ৬৪%।
  • চাকরি কাল ২১ বছর হলে ৭৫%প্রাপ্ত হবেন আগের হার ছিল ৬৭ %।
  • চাকরি কাল ২২ বছর হলে ৭৯% প্রাপ্ত হবেন আগের হার ছিল ৭০%।
  • চাকরি কাল ২৩ বছর হলে ৮৩% প্রাপ্ত হবেন আগের হার ছিল ৭৪%। চাকরি কাল ২৪ বছর হলে ৮৭% প্রাপ্ত হবেন আগের হার ছিল ৭৭%।
  • চাকরি কাল ২৫ বছর হলে ৯০% প্রাপ্ত হবেন আগের হার ছিল ৮০%।

সবশেষে একথা বলতে চাই আমার এই পোস্ট টি ভালো লাগলে শেয়ার করুন। কারণ পেনশন ই দিতে পারে একজন সরকারি চাকরি জীবিকে সামাজিক ও অর্থনৈতিক নিরাপত্তা।

‌‌

Leave a Reply