১০টি সেরা বাংলাদেশের বেসরকারি হাসপাতাল | Best Private Hospitals in Bangladesh

You are currently viewing ১০টি সেরা বাংলাদেশের বেসরকারি হাসপাতাল | Best Private Hospitals in Bangladesh
১০টি সেরা বাংলাদেশের বেসরকারি হাসপাতাল

বাংলাদেশের বেসরকারি হাসপাতাল এমন  একটি সংস্থা  যা স্ব-স্বাধীন ভাবে পরিচালিত হয়। এর মাধ্যমে রোগীরা তাদের পছন্দের সার্জন এবং ডাক্তার নির্বাচন করতে পারে। বেসরকারি হাসপাতালে মানুষ অল্প সময়ের মধ্যে সেরা চিকিৎসা  ও বিশেষজ্ঞ পেয়ে যায়। বেসরকারি হাসপাতালগুলো উচ্চ মানের  প্রয়োজনীয়তার সাথে উন্নত স্বাস্থ্যসেবা প্রদান করে। লোকেরা  ব্যয়ের  চেয়ে গুণগতমান পছন্দ করে  যা আমাদের দেশের নামী বেসরকারি হাসপাতালগুলো বেশিরভাগ সময়ে সরবরাহ করে।আমাদের দেশে অনেক ভালো বেসরকারি হাসপাতাল  আছে।

বাংলাদেশের সেরা বেসরকারি হাসপাতাল

আমরা বাংলাদেশের সেরা ১০ টি বেসরকারি হাসপাতাল বেছে নিয়েছি যারা ভালো পারফরম্যান্স করছে। নিম্নলিখিত তত্ত্ব অনুসারে এই হাসপাতালগুলো রোগীদের জন্য সেরা পরিষেবা প্রদান করে। আপনি যদি বাংলাদেশের সেরা বেসরকারি হাসপাতালের তালিকা অনুসন্ধান করেন, তবে  নিম্নলিখিত তালিকাটি অবশ্যই আপনাকে অন্বেষণ করতে  সহায়তা করবে।

বাংলাদেশের সেরা ১০ টি বেসরকারি হাসপাতাল

১) অ্যাপোলো হসপিটাল:

অ্যাপোলো হসপিটালস ঢাকা বাংলাদেশের একমাত্র জেসিআই স্বীকৃত ৪২৫ শয্যার মাল্টিডিসিপ্লিনারি সুপার স্পেশালিটি  কেয়ার হাসপাতাল। এটি আত্মবিশ্বাসের সাথে সর্বাধুনিক চিকিৎসা অস্ত্রোপচার এবং ডায়াগনোস্টিক সুবিধাসহ ব্যাপক স্বাস্থ্যসেবা প্রদান করে। এর  পরিষেবা গুলো অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক নার্স এবং প্রযুক্তিবিদদের দ্বারা প্রদান করা হয়। এই হাসপাতালটি ১৬ এপ্রিল ২০০৫ এ উচ্চ ও  আন্তর্জাতিক মানের স্বাস্থ্যসেবা প্রদানের লক্ষ্যে তার কার্যক্রম শুরু করে। হাসপাতালটি এ্যাপোলো হসপিটালস এন্টারপ্রাইজ লিমিটেড এবং এসটিএস হোল্ডিংস লিমিটেড (এসটিএস গ্রুপ) এর একটি যৌথ প্রকল্প।

২) স্কয়ার হাসপাতাল  লিমিটেড:

স্কয়ার হাসপাতাল  ঢাকা শহরের আরেকটি শীর্ষপর্যায়ের হাসপাতাল। এটি অসামান্য স্বাস্থ্যসেবা এবং ক্লিনিক্যাল পরিষেবা সরবরাহ করে। তাদের সেবাও  চমৎকার। যদিও চিকিৎসা খরচ অনেক বেশি।আপনি যখনই চান তাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন এবং তারা কয়েক মুহূর্তের মধ্যেই আপনার যোগাযোগের সাড়া দেবে।

৩) ল্যাবএইড হাসপাতাল:

ল্যাবএইড গ্রুপ দ্বারা পরিচালিত অত্যন্ত বিখ্যাত হাসপাতাল গুলোর মধ্যে এটি অন্যতম। এটি বাংলাদেশের  কার্ডিয়াক চিকিৎসায় একটি বিপ্লব সৃষ্টি করেছে। এটি বিভিন্ন ধরনের রোগের চিকিৎসার জন্য বিশেষ সুবিধা সহ ঢাকায় অবস্থিত। এই হাসপাতালটির অধীনে এক জায়গায় অনেক চিকিৎসা সেবা পাওয়া যায়। এই ক্যাম্পাসে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে ঢুকে এবং নতুন আশা নিয়ে বের হয়।

৪) ইবনে সিনা  হাসপাতাল:

১৯৮৩ সালের জুলাই মাসে ইবনে সিনা হাসপাতাল প্রতিষ্ঠিত হয়।  ইবনে সিনা বাংলাদেশের স্বাস্থ্যসেবায় ব্যাপক প্রভাব ফেলেছে। এটি মেডিসিন, গাইনি, সার্জারি,  হাঁটু সার্জারি, অর্থোপেডিক সার্জারি, ইউরোলজি এবং আরো অনেক কিছুতে অক্লান্ত  পরিষেবা প্রদান করছে। এটি ল্যাপারোস্কোপিক  এবডোমিনাল এবং  কলোরেক্টাল সার্জারিও  চালু করেছে যা সম্পূর্ণ নতুন। সাশ্রয়ী মূল্য এবং মানসম্পন্ন চিকিৎসার জন্য প্রতিদিন হাজার হাজার রোগী হাসপাতালে বিভিন্ন শাখায়  যান।

৫) পপুলার ডায়াগনস্টিকস :

পপুলার ডায়াগনোস্টিক বাংলাদেশের নতুন চিকিৎসা যন্ত্র এবং উদীয়মান প্রযুক্তি চালু করার ক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছে। হাসপাতালটি  ১৯৮৩ সালে তার কার্যক্রম শুরু করে তখন থেকে এটি মানুষের মধ্যে একটি সাধারণ নাম। রাজশাহী, বরিশাল, ময়মনসিংহ, চট্টগ্রাম, রংপুর এবং ঢাকা শহরের বিভিন্ন স্থান সহ সরকারের সাথে সমস্ত
শাখাগুলি বিতরণসহ এটি দেশের অন্যতম বিস্তৃত স্বাস্থ্যসেবা এবং ডায়াগনোস্টিক পরিষেবা প্রদানকারী।

৬) শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মেমোরিয়াল কেপিজে স্পেশালাইজড হাসপাতাল ও নার্সিং কলেজ:

এটি  বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের নামে নামকরণ করা হয়েছে যা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান  প্রতিষ্টিত করেছেন।  হাসপাতালটির সর্বোচ্চ ধারণক্ষমতা ২৫০ শয্যায় কেপিজে হেলথকেয়ার বেরহাদ দ্বারা পরিচালিত হচ্ছে যা মালয়েশিয়ার  একটি বিখ্যাত বেসরকারি স্বাস্থ্য সেবা সংস্থা।  বর্তমানে কেপিজে  মালয়েশিয়ার মোট ২৬ টি হাসপাতাল পরিচালনা করে  এবং এটি অস্ট্রেলিয়া, ইন্দোনেশিয়া এবং থাইল্যাণ্ডেও  কাজ করে যাচ্ছে।

৭) ইউনাইটেড হাসপাতাল  লিমিটেড:

ইউনাইটেড হাসপাতালে উচ্চস্তরের অভিজ্ঞতা এবং
দক্ষতা সম্পন্ন ডাক্তার রয়েছে। তাদের প্রতিটি ক্ষেত্রে পেশাদার ডাক্তার আছে। এটিতে অনকোলজি, নেফ্রলজি, গাইনোকোলজি,রেস্পিরেটরি নিউরো সার্জারি,  কোভিড ১‌৯ স্পেশাল ইউনিট  ও কোভিড নির্দেশিত আই সি ইউ ইত্যাদি সহ বেশ কয়টি বিভাগ রয়েছে।…

৮)বারডেম হাসপাতাল:

বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অফ রিসার্চ এন্ড রিহ্যাবিলিটেশন ফর ডায়াবেটিস এন্ডোক্রাইন এন্ড মেটাবলিক ডিসঅর্ডার একটি প্রাচীনতম এবং সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য হাসপাতাল গুলোর মধ্যে একটি। যদিও অনেকে মনে করেন এটি শুধু ডায়াবেটিক রোগীদের জন্য কিন্তু  অন্যান্যও  চিকিৎসার ব্যবস্থাও রয়েছে।

৯) ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশন:

১৯৭৮সালে কিছু মেডিকেল ও নন চিকিৎসক সমাজকর্মী নিয়ে সংগঠনটি যাত্রা শুরু করে এটি শেষ পর্যন্ত ওয়ার্ল্ড  হার্ট ফেডারেশন এর সাথে অনুমোদিত একটি বেসরকারি  সংস্থা হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করে। এটি কার্ডিওভাসকুলার রোগ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে কঠোর পরিশ্রম করছে।দেশ-বিদেশের বিভিন্ন সংস্থার সহায়তায় মিরপুরে ৪৫০শয্যাবিশিষ্ট কার্ডিয়াক হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে।সর্বনিম্ন খরচে হার্টের চিকিৎসার জন্য বিশ্বস্তদের মধ্যে একটি  অন্যতম বেসরকারি হাসপাতাল।

১০) ইব্রাহিম কার্ডিয়াক  হাসপাতাল এন্ড রিসার্চ সেন্টার:

ইব্রাহিম কার্ডিয়াক হাসপাতাল সাশ্রয়ী মূল্যের বিভিন্ন  কার্ডিয়াক চিকিৎসা প্রদান করে।  এটি বাংলাদেশের কার্ডিয়াক ক্ষেত্রে সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য নাম গুলোর মধ্যে একটি। কার্ডিওভাসকুলার, অঙ্গ প্রতিস্থাপন পরিষেবাগুলির জন্য  বিশেষভাবে খ্যাত। এই ক্ষেত্রগুলিতে তাদের বেশ দক্ষ কর্মী রয়েছে।  টিমওয়ার্ক এবং মানের উন্নতির সাথে তারা আরও উচ্চস্তরে পৌঁছাবে।

সবাই স্বাস্থ্য সেবার ক্ষেত্রে সর্বোত্তম সেবা চায়

আজ কাল সারাদেশে প্রচুর বেসরকারি হাসপাতাল রয়েছে। বাইরে থেকে কোনটি ভাল তা জানা কঠিন।সুতরাং  এখানে আমরা বাংলাদেশের সেরা ১০ টি বেসরকারি হাসপাতালের  তালিকা  প্রদান করে আপনাকে সাহায্য করার চেষ্টা করেছি। সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।

Leave a Reply